Information

ই-টিন সার্টিফিকেট কেন, কীভাবে, ফি কত ও বাতিল করার নিয়ম

আসসালামু আলাইকুম। ই-টিন বা টিআইএন বা ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার একটি বিশেষ নম্বর যা দিয়ে করদাতাকে শনাক্ত করা হয়। আজকে আমি আলোচনা করব ই-টিন সার্টিফিকেট কেন প্রয়োজন, কীভাবে রেজিস্ট্রার করবেন, কত টাকা ফি দিতে হবে, সুবিধাসমূহ, সার্টিফিকেট বের করার নিয়ম ও বাতিল করার নিয়ম।

টিন সার্টিফিকেট কি বা কেন

টিন হল ট্যাক্স-পেয়ার আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার। Taxpayer’s Identification Number (TIN) হলো ১২ সংখ্যার একটি বিশেষ নম্বর, যা সংশ্লিষ্ট কর অফিস প্রদান করে। এর প্রথম তিনটি সংখ্যা দ্বারা করদাতার অঞ্চল, মাঝের তিনটি সংখ্যা দ্বারা করদাতার পদমর্যাদা এবং শেষ চারটি দ্বারা করদাতাকে বিশেষভাবে চিহ্নিত করা হয়। ব্যবসা করতে হলে টিআইএন লাগে। শুধু ব্যবসা কেন, আয় করেন এমন সব মানুষের দৈনন্দিন অনেক প্রয়োজনে টিআইএন লাগে। এমনকি আপনি যদি আয় না করেন, কিন্তু পৈতৃক সূত্রে সম্পদ থাকে, তা–ও টিআইএন একটি জরুরি কর সনদপত্র।

টিআইএন কী কাজে লাগে

  • আমদানি করার ক্ষেত্রে আমদানিপত্র রেজিস্ট্রেশন করার জন্য
  • কম্পানি রেজিস্ট্রেশনের জন্য
  • গাড়ির মালিক হতে
  • ব্যবসা শুরু করতে ট্রেড লাইসেন্স নিতে
  • ড্রাগ লাইসেন্সের জন্য
  • আইএসডি টেলিফোন সংযোগের জন্য
  • জমি বা ভবন রেজিস্ট্রেশনের জন্য
  • চুক্তিনামা অথবা অন্যান্য যেকোনো বাণিজ্যের দরপত্রের জন্য
  • ট্রেড লাইসেন্স নবায়ন করার জন্য
  • সদস্যপদ নবায়ন করার জন্য
  • মুসলিম বিবাহ ও তালাকনামা রেজিস্ট্রেশনের জন্য
  • ক্রেডিট কার্ড পেতে
  • ঋণ অনুমোদনের জন্য

টিন পাঁচ প্রকার হয়ে থাকে

  • SSN: সামাজিক নিরাপত্তা জন্য
  • EIN: ব্যবসাসংক্রান্ত বিষয়াবলির জন্য
  • ITIN: ব্যক্তির আবাসিক, অনাবাসিক, বাসস্থান, তার বৈবাহিক অবস্থান প্রভৃতির জন্য
  • ATIN ও PTIN: বাংলাদেশে প্রয়োজন বা প্রয়োগক্ষেত্র নেই

কারা টিআইএন সার্টিফিকেট নেবেন

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নিয়ম অনুযায়ী আপনি যদি মাসে ১৬ হাজার টাকার সমান অর্থ আয় করেন। তবে আপনার টিআইএন থাকা আবশ্যক। এমনিতে পুরুষদের বছরে তিন লাখ, সব বয়সের নারী এবং ৬৫ বছরের ঊর্ধ্বে সব নাগরিক সাড়ে তিন লাখ এবং প্রতিবন্ধীদের বছরে সাড়ে চার লাখ টাকার ওপরে আয় না হলে কর দিতে হয় না। এর ওপর আয় হলে কর দেওয়া বাধ্যতামূলক। যদি আপনি করসীমার নিচে থাকেন, তবে টিআইএন দেখিয়ে শূন্য বিবরণী জমা দিতে হয়। যদিও টিআইএন প্রয়োজন হয়, এমন কোনো ক্ষেত্র আপনার থাকে, যেমন গাড়ির মালিকানা বা কোনো সংগঠনের সদস্যপদ, তাহলে করযোগ্য আয় না থাকলেও টিআইএন সার্টিফিকেট থাকতেই হবে।

কীভাবে রেজিস্ট্রার করবেন

টিআইএন করা খুবই সহজ একটি কাজ। এর জন্য কোনো অফিসে যাওয়া লাগে না। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইটে ফরম পাওয়া যাবে। এরপর মুঠোফোন নাম্বার, জাতীয় পরিচয়পত্র, সদ্য তোলা এক কপি ছবি দিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করলে ঘরে বসেই ই-টিআইএন নাম্বার পাওয়া যাবে।

Registration Link

নিচের ভিডিওতে দেখে নিন কীভাবে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে

e-TIN Registration Video Tutorial

কত টাকা ফি বা ট্যাক্স দিতে হবে

কত টাকা ট্যাক্স ফি দিতে হবে তা নির্ভর করে আপনার বাৎসরিক আয়ের উপর তবে নূন্যতম ট্যাক্স ৫০০০ টাকা (ঢাকা ও চট্টগ্রাম), ৪০০০ টাকা (অন্যান্য সিটি কর্পোরেশন), ৩০০০ টাকা সিটি কর্পোরেশন ব্যতীত। ফ্রিল্যান্সিং এর ইনকামের কোন ট্যাক্স দিতে হবে না ২০২৪ সাল পর্যন্ত। নিচের টেবিলে দেওয়া হল আপনার আয় কত হলে কত % কর দিতে হবে।

আয়কর আইন ২০২০-২০২১

পুরুষনারী/৬৫ বছর বয়স্ককর হার
০-৩ লক্ষ টাকা০- সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা০%
৩-৪ লক্ষ টাকা৩.৫-৪.৫ লক্ষ টাকা৫%
৪-৭ লক্ষ টাকা৪.৫-৭.৫ লক্ষ টাকা১০%
৭-১১ লক্ষ টাকা৭.৫-১১.৫ লক্ষ টাকা১৫%
১১-১৬ লক্ষ টাকা১১.৫-১৬.৫ লক্ষ টাকা২০%

টিন গ্রহণকারী হিসেবে আপনার সুবিধা

আপনি যদি একজন টিন সার্টিফিকেট ধারী হয়ে থাকেন তাহলে কর-সংক্রান্ত যেকোনো বিষয়ে আপনি নিজেই জানতে পারবেন। আপনার যদি টিন সার্টিফিকেট থাকে তাহলে কর্তৃপক্ষ কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিলে আপনি তার বিপরীতে কোনো আবেদন করার অধিকার রাখেন। কর্তৃপক্ষ সব বিষয়ে আপনাকে তথ্য প্রদানে বাধ্য থাকবে কারন আপনি একজন নিয়মিত কর প্রদানকারী ব্যক্তি।

আপনার যদি টিন সার্টিফিকেট তাহলে আপনাকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভাউচার প্রদান করতে বাধ্য থাকিবে। আপনার যদি টিন সার্টিফিকেট থাকে তাহলে টিন-সংক্রান্ত যথাযথ নীতিমালা থাকায় আপনি আশঙ্কামুক্ত থাকবেন। টিন গ্রহীতার বাধ্যবাধকতা কর প্রদানের নীতিমালা অনুযায়ী আপনাকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রদান করতে হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বকেয়া কর পরিশোধ করতে হবে।

অপরদিকে আপনার আয় যদি দুই লাখ টাকার ওপরে হলে আপনাকে আয়ের চতুর্থাংশের এক ভাগ অগ্রিম কর প্রদান করতে হবে সরকারী ক্ষাতে। আবার আপনি যদি আপনি একজন টিন সার্টিফিকেট ধারী হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে/টিন গ্রহণকারীকে অবশ্যই তাঁর সম্পত্তি এবং দায়বদ্ধতা সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানতে হবে। টিন সার্টিফিকেট করার সময় আপনাকে অবশ্যই ব্যক্তিগত আয় সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিতে হবে।

আপনার ব্যবসায়িক লেনদেন সম্পর্কিত সকল তথ্য সঠিকভাবে প্রদান করতে হবে। আপনার টিন সার্টিফিকেট অনুমোদন, চুক্তিনামা হিসাবসংক্রান্ত তথ্য আইন অনুযায়ী হবে। আপনি যদি একজন ব্যবসায়ী হয়ে থাকেন তাহলে সেই ব্যবসাসংক্রান্ত বিষয়ে আপনাকে অবশ্যই টিন সার্টিফিকেট প্রদর্শন করতে হবে।

ইনকাম ট্যাক্স কীভাবে জমা দিবেন

আপনি যদি ট্যাক্স দিতে চান তাহলে প্রথমে আপনার টিন সার্টিফিকেট নিতে হবে তার পর আপনাকে ইনকাম ট্যাক্স ফাইল/ফরম পূরণ করে ট্যাক্স রিটান জমা দিতে হবে।

ই-টিন সার্টিফিকেট করার পরে ট্যাক্স বা রিটান জমা না দিলে আপনার ইনকাম কালো টাকা হিসাবে গণ্য হবে।

টিন সার্টিফিকেট ডাউনলোড

আপনারা যারা টিন সার্টিফিকেট ডাউনলোড করতে চান। তাদের জন্য এখানে কতগুলো নিয়ম দেয়া হয়েছে। যার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই টিন সার্টিফিকেট ডাউনলোড করতে পারবেন।

  • আয়কর সাইটে প্রবেশের করুন।
  • মেনু থেকে লগিন এ ক্লিক করুন।
  • আপনার ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে নিজের একাউন্টে লগিন কর…
  • সেখানে আপনার যাবতীয় সব তথ্য দেখতে পারবেন।
  • সেখান থেকে প্রিন্ট বা ডাউনলোড করতে পারবেন।

টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার নিয়ম

মূলত আয়কর অধ্যাদেশ আপনার টিন সার্টিফিকেটটি বন্ধ করার জন্য সুমির্দিষ্ট কোন নির্দেশনা দেয় নি। তবে প্রচলিত ক্ষেত্রে আমরা টিন বাতিল করার জন্য এই নিয়মগুলো অনুসরণ করে থাকি। আপনি যেই কর অঞ্চলের অধীনে আপনার টিন নাম্বারটি খুলেছেন সেই অঞ্চলের উপকর কমিশনার বরাবর আপনার টিন টি বাতিলের জন্য আবেদন বা দরখাস্ত করতে হবে। তবে দরখাস্থ করার পূর্বে সময়সাপেক্ষ কিছু নিয়ম অত্যাবশক।

  • একজন করদাতা হতে যে পরিমাণ আয় করার প্রয়োজন সেই পরিমাণ আয় যদি আপনার না থাকে তাহলে আপনাকে কমপক্ষে ৩ বছর শূণ্য রিটার্ন দাখিল করতে হবে।
  • তিন বছর শূণ্য রটার্ন দেয়ার পরেও যদি আপনার সামনে করযোগ্য আয়ের কোন সম্ভাবনা না থাকে তাহলে আপনি তৃতীয় বছরের রিটার্ন জমা দেয়ার সময় আপনার আয়কর ফাইলটি নথিস্থ করার জন্য একটি আবেদন করতে হবে উপকর কমিশনার বরাবর।
  • উপকর কমিশনার যদি আপনার দরখাস্থে সন্তুষ্ট হয় তাহলে আপনার ফাইলটি নথিস্থ করে রাখবেন।
  • পরবর্তীতে যদি আপনার কর দেয়ার মতো আয় হয় তখন সেই ফাইলটি পুনরায় সচল করতে হবে।

আশা করছি এই পোস্টটি পড়ার মাধ্যেমে আপনি টিন সার্টিফিকেট এবং ইনকাম ট্যাক্স সম্পর্কে পূর্ণ একটি ধারণা পেয়ে গেছেন। এই ধরণের আরো পোস্ট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেজে লাইক দিয়ে সাথেই থাকুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You Have AdBlocker Enabled

Please disable your AdBlock to continue using this website.